টাইটেল দেখেই সংবাদ কি তা নিশ্চয়ই বুঝে ফেলেছেন আপনারা?তাহলে এবার বিস্তারিত বলি।দেশের আটটি সাধারণ শিক্ষাবোর্ডে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা অভিন্ন প্রশ্নপত্রে নেওয়ার পরিকল্পনা সরকারের বিবেচনায় রয়েছে।সাধারণ শিক্ষা বোর্ডগুলোর চেয়ারম্যানরা এর পক্ষে থাকলেও বিষয়টি আরো খতিয়ে দেখে সিদ্ধান্ত নিতে চায় সরকার।
শিক্ষা সচিব কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বৃহস্পতিবার এ সম্পর্কে বলেন, “এ বিষয়ে আমরা এখনো কোনো সিদ্ধান্তে আসিনি। ঠিক কবে থেকে এটা কার্যকর হবে, তাও বলতে পারছি না। তবে সার্বিক বিষয়ে পর্যালোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।”
কি মনে হয় সিদ্ধান্ত ঠিক তো?সাধারণ শিক্ষা বোর্ডগুলোর সব কটিতে এক প্রশ্নে পাবলিক পরীক্ষা হলে শিক্ষার্থীর মূল্যায়নে হেরফের হবে না বলে মনে করছেন এর পক্ষে অবস্থান নেওয়ারা।ঢাকা শিক্ষা বোর্ড ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটি চেয়ারম্যান ফাহিমা খাতুন বলেন, “পৃথক প্রশ্নপত্রের কারণে বিভিন্ন বোর্ডের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলে যেমন তারতম্য হয়, তেমনি দেখা যায় শিক্ষার্থীদের মূল্যায়নও হচ্ছে আলাদা মানে।বর্তমানে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট জেএসসি) পরীক্ষা ও সৃজনশীল বিষয়ের পরীক্ষা অভিন্ন প্রশ্নপত্রে নেওয়া হচ্ছে। এক্ষেত্রে সব পরীক্ষা এক প্রশ্নে নিতে আমরা কোনো সমস্যা দেখছি না।”

সারাদেশে গত এসএসসি পরীক্ষার ২১টি বিষয়ের প্রশ্ন সৃজনশীল পদ্ধতিতে হওয়ায় তা অভিন্ন প্রশ্নপত্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে। আর এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় বাংলা বিষয়ে সৃজনশীল পদ্ধতিতে প্রশ্ন হওয়ায় তার প্রশ্নপত্রও ছিল অভিন্ন।

ফাহিমা খাতুন জানান আরো বলেন, “আগামী বছর এইচএসসির অন্তত চারটি বিষয়ের পরীক্ষা সৃজনশীল পদ্ধতিতে অভিন্ন প্রশ্নপত্রে হতে পারে।সব বিষয়ের পরীক্ষা অভিন্ন প্রশ্নপত্রে নেওয়ার বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।”

তো,আপনাদের মতামত কি প্রশ্ন এক হওয়া উচিত? না অনুচিত?