স্বপ্ন, দুঃস্বপ্ন, আর কিছু -সকল পর্ব

স্বপ্ন দেখে না এমন মানুষ দুনিয়াতে আমার জানা মতে নাই।ভবিষ্যতেও হবে না।এই সিরিজে আমরা স্বপ্ন, এর বিভিন্নতা,প্রকার এবং অন্যান্য আরও অনেক বিষয় নিয়ে আলোচনা করব।

স্বপ্ন নিয়ে ব্লগ সিরিজ লেখার আগে আমি স্বপ্ন নিয়ে বিস্তর গবেষণা করেছি। 😀

খুব মজার কিছু তথ্য পেয়েছি যেমন বলা যায় স্বপ্নের প্রকারভেদ। অদ্ভুতভাবে একজন সাধারণ ছেলে,সাধারণ ,মেয়ে এবং বিজ্ঞানী এই শ্রেণীর স্বপ্নের প্রকারভেদ সম্পর্কে মন্তব্য সম্পূর্ণ ভিন্ন।

বন্ধু মহলে আলোড়ন সৃষ্টিকারী আমার এক বান্ধবীর কথা বলি,তার কাছে আমি জানতে চেয়েছিলাম, “তুমি কোন কোন ধরনের স্বপ্ন দেখো”? তার উওর ছিল এরকম, “আর স্বপ্ন?[???] কে দেখার পর থেকে তো আমার রঙিন স্বপ্নগুলো পুরো জীবন্ত স্বপ্ন হয়ে যাচ্ছে,সাদাকালো স্বপ্নগুলো পুরো মুছে গেছে।…….” তারপর আর নাই বা বললাম তার স্বপ্নের কথা।আশা করি বুঝতে পারছেন!!! তারপর আমাদের এই Blog এরই নিয়মিত এক visitor এর স্বপ্নের প্রকারভেদ শুনুন। তার ছদ্মনাম “আলীরাজ”।Conversation:

আমি:ভাই,ভাবতেছি স্বপ্ন নিয়ে একটা Post লিখব।

আলীরাজ:ঐটা তোর স্বপ্নেই রাখ।

আমি:একটু Help কর।স্বপ্ন কয় প্রকার বলতো?

আলীরাজ:আমি কি জানি?আমি তো স্বপ্ন বিশারদ না।

আমি:আহা!তোর নিজের মতামত দে।

আলীরাজ:আচ্ছা।স্বপ্ন ১২ প্রকার।যথা: ১.ছোট ২.বড় ৩.মাঝারি ৪.ন্যানো ৫.ফর্সা ৬.কালো ৭.সত্য ৮.মিথ্যা ৯.ভ্যাবলা ১০.মগা ১১.Stupid ১২.কানা

আমি কিন্তু এই জাতের স্বপ্নের একটারও আগা মাথা বুঝি নাই।কেউ বুঝলে জানাবেন।এখন ইন্টারনেট ঘাটাঘাটি করে পাওয়া যাওয়া কয়েকজন বিজ্ঞানীর স্বপ্নের প্রকারভেদ নিয়ে মতামত:

দীর্ঘ স্বপ্ন:এ জাতীয় স্বপ্ন বেশ দীর্ঘ হয় এবং অনেক সময় স্বপ্নদ্রষ্টার উপর বেশ প্রভাব ফেলে এবং ঘুম থেকে জেগে ওঠার পর বেশিরভাগ সময়ই অনেকটা অংশ দ্রষ্টার মনে থাকে।

স্বল্পস্থায়ী স্বপ্ন:এ জাতীয় স্বপ্ন মানুষের ওপর সাধারণত কোন প্রভাব ফেলে না কারণ বেশিরভাগ সময়ই মানুষ ঘুম থেকে উঠে এই স্বপ্নের কথা মনে করতে পারে না।শুধু মনে করতে পারে সে কিছু একটা স্বপ্ন দেখেছে।

এই দুই রকম স্বপ্নের মধ্যেও আছে বিভিন্ন রকম।যেমন: বাস্তব স্বপ্ন, কাল্পনিক স্বপ্ন ইত্যাদি ইত্যাদি।এখন এই সব নিয়ে লিখব ২য় পর্বে।কারণ ভাই লিখতে হলে আমারও একটু স্বপ্ন দেখা লাগবে তো, নাকি? 😛 বিদায়।সবাইকে দীর্ঘ স্বপ্ন দেখার শুভেচ্ছা রইল।

পরের পর্ব