একবার জেলা শহর থেকে দূরে একটি স্কুলে পরিদর্শক আসেন।তিনি বিভিন্ন ক্লাস ঘুরে দেখেন।একটা ক্লাস রুমে প্রবেশ করে একটু গম্ভীরভাবে তিনি জিজ্ঞাস করলেন,

  • পরিদর্শক: সোমনাথ মন্দির কে ভেঙ্গেছে?

সবাই চুপ।কেউ কোন উওর দিচ্ছে না।তখন তিনি ক্লাস ক্যাপ্টেনকে জিজ্ঞাস করলেন,

  • পরিদর্শক: সোমনাথ মন্দির কে ভেঙ্গেছে?
  • ক্যাপ্টেন: স্যার, আমি ভাঙ্গিনি।

পরিদর্শক এবার রেগে গেলেন।তিনি ক্লাসের সবাইকে বললেন,

  • পরিদর্শক: কেউ কি বলতে পারো না সোমনাথ বন্দির কে ভেঙ্গেছে?

পাশে ইতিহাসের শিক্ষক ছিলেন।তিনি বললেন,

  • শিক্ষক: স্যার, এরা একটু দুষ্টু হতে পারে।কিন্তু বদমাইশ নয়।এরা কেউ সোমনাথ মন্দির ভাঙ্গেনি।

পরিদর্শক এবার অবাক হয়ে গেলেন।পরে প্রধান শিক্ষককে বললেন,

  • পরিদর্শক: আপনাদের স্কুলের শিক্ষকরা ভাল না।এরা কেউ বলতে পারছে না যে সোমনাথ মন্দির কে ভেঙ্গেছে।
  • প্রধান শিক্ষক: এদের সবাইকে তাহলে বরখাস্ত করতে হবে।এত করে বলি ছাত্রদের উপর ভাল করে নজর রাখতে তারপরও এরা জানেনা সোমনাথ মন্দির কে ভেঙ্গেছে।

যারা কৌতুকটি বুঝতে পারেনি তারা নিচের ইতিহাসটি পড়ুন……

সোমনাথ মন্দির ভারতের একটি প্রসিদ্ধ শিব মন্দির।গুজরাট রাজ্যের পশ্চিম উপকূলে অবস্থিত সৌরাষ্ট্র অঞ্চলের বেরাবলের নিকটস্থ প্রভাস ক্ষেত্রে এই মন্দির অবস্থিত।সোমনাথ মন্দিরটি “চিরন্তন পীঠ” নামে পরিচিত।কারণ অতীতে ছয় বার ধ্বংসপ্রাপ্ত হলেও মন্দিরটি সত্বর পুন-নির্মিত হয়।যারা মন্দিরটি ধ্বংস করেছে বা ভেঙ্গেছে তারা হলেন:

  1.  ৭২৫ খ্রিস্টাব্দে সিন্ধের আরব শাসনকর্তা জুনায়েদ
  2.  ১০২৪ খ্রিস্টাব্দে মামুদ গজনী
  3.  ১২৯৬ খ্রিস্টাব্দে সুলতান আলাউদ্দিন খিলজির
  4.  ১৩৭৫ খ্রিস্টাব্দে গুজরাটের সুলতান প্রথম মুজফফর শাহ্‌
  5. ১৪৫১ খ্রিস্টাব্দে গুজরাটের সুলতান মাহমুদ বেগদা
  6.  ১৭০১ খ্রিস্টাব্দে মুঘল সম্রাট আওরঙ্গজেব
সোমনাথ মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ
সোমনাথ মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ