[এই পর্বে: শিক্ষার্থীদের জন্য সুখের তরীকা]

 

গুরুজনেরা বলেন, সুখ নাকি খুবই আপেক্ষিক একটি বিষয়। তার নাকি নির্দিষ্ট কোন সংজ্ঞা নেই। আবার বেশ কয়েকবছর আগে খবরের কাগজগুলোতে দেখেছিলাম কোন এক প্রতিষ্ঠান যেন পৃথিবীর যে দেশগুলোর মানুষ সবচেয়ে সুখী তার একটা তালিকা তৈরি করেছে। দুনীতির মতই তালিকার শীর্ষ নামটি ছিল “বাংলাদেশ” কিন্তু ভাই সুখ করার মহান দায়িত্বটা আমিই কাধে তুলে নিলাম। এখন থেকে বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষদের সুখী হওয়ার কিছু মহাকৌশল আমি আপনাদের জানানোর চেষ্টা করব। আশা করি এগুলো আপনাদের স্থায়ী সুখী না করলেও ক্ষণস্থায়ী আনন্দ দিতে পারবে। ইনশাআল্লাহ……….

আজ থাকছে, “শিক্ষার্থী শ্রেণীর মানুষদের জন্য সুখের তরীকা”

এই শ্রেণীর মানুষদের কাছে সুখ বলতে প্রধানত পরীক্ষায় ভাল নাম্বার পাওয়া, অত্যন্ত পাশ মার্কের উওর করা, শান্তিপূর্ণভাবে নকল ইত্যাদি। তবে যারা আবার ওভার স্মাট তাদের জন্য সুখ মানে নিখুঁতভাবে ফাঁকি মেরে টাংকি মারতে যাওয়া, বাবার পকেট থেকে টাকা মারা ইত্যাদি ইত্যাদি। শিক্ষার্থী হিসেবে সুখী হওয়ার জন্য  মহকৌশল গুলো অনেকটা এই রকম…….

সুখী হবার কিছু (Open Secret) মহাকৌশল
হাসুন প্রাণ খুলে
  • মনে রাখবেন, শিক্ষার্থীদের এমনিই সবচেয়ে সুখী শ্রেণীর হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। অতএব আপনি সুখী শ্রেণীর মানুষ। এটা ভেবেই একটু হাসেন।
  • একটু চিন্তা করে দেখুন পড়াশুনা করেন বলে আপনাকে কত চিন্তা করতে হয় না! নিজের বাবা মার সাথে নিজেকে তুলনা করুন। ভেবে দেখুন তাদের মত কত কঠিন কাজ গুলো আপনার করা লাগছে না। চিন্তা করেন দেখবেন নিজেকে কতটা সুখী মনে হচ্ছে।
  • হয়তোবা ভাবছেন পড়াশুনা করেন বলেই আপনি মহা অসুখী। কিন্তু রাস্তার যে শিশুটি কিংবা আপনার বাসার কাজের ছেলেটি বা মেয়েটি পড়াশুনার সুযোগই পাচ্ছে না, তার তুলনায় আপনি পড়াশুনা করে জীবন গড়ার সুযোগ পাচ্ছেন সেটা কি কম সুখের কথা। দুই মিনিট ভাবেন দেখবেন নিজেকে সুখী সুখী লাগবে।
  • বিশ্বাস করেন আর নাই বা করেন, যারা পরীক্ষায় ফেল করে তারা মহাসুখী মানুষ!! কত চিন্তা থেকে তারা মুক্ত থাকে। তাই যদি নিয়মিত ফেল করে থাকেন, জেনে রাখুন আপনিই সবচেয়ে সুখী।
  • যতদিন পড়াশুনা করছেন মাথার উপর অভিভাবক আছে। এই উছিলায় একটু আনন্দ ফুর্তি করে নেন। স্বল্প সময়ের জন্য হলেও সুখী হবেন।
  • যতটা পারেন পড়াশুনা বা অন্যান্য দুঃখ গুলো ভুলে থাকার চেষ্টা করুন। সুখী হবার এটি বড় উপায়।
  • চুপচাপ ঘরের কোনে বসে না থেকে বাইরে আসুন, সবার সাথে মিশতে শিখুন। সকলের আনন্দ হাসি, ঠাট্টায় শামিল হউন। দেখবেন জীবনটা কতটা নির্মল লাগছে।

তবে সব কথার শেষ কথা হচ্ছে, সুখ নিজের কাছে। পরিষ্কার চিন্তা করুন, হাসতে শিখুন আর নিজের যা আছে তা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকার চেষ্টা করুন। তাহলেই আপনার সুখের পিছনে ছুটতে হবে না, সুখই আপনার পিছনে ছুটবে।

ভালো থাকবেন……