বন্ধুরা, আশা করি সবাই ভালো আছ। আজকে আমি তোমাদের একটি মজার ঘটনা বলবো। ঘটনাটি মূলত আমার এক চাচার কাহিনী। আমার সেই চাচার নাম মোঃ রফিকুল ইসলাম। তো তার মুখেই শুনন…..

আমাদের বর্তমান সমাজের একজন প্রভাবশালী লোক চিহ্নিত করা হয় একটি বিশেষ জিনিস থাকলে। আর তা হচ্ছে সেক্রেটারি। শুনতে অবাক হলেও আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি এটা সত্যি। একবার আমার দাঁতে প্রচণ্ড যন্ত্রণা শুরু করে। এ থেকে মুক্তি পাবার জন্য আমি এক স্বনামধন্য দাঁতের ডাক্তারকে ফোন করি। কিন্তু ডাক্তারের অ্যাসিস্ট্যান্ট ফোন ধরে বলে ডাক্তার সাহেব এখন ব্যস্ত আছেন, দেওয়া যাবে না। পরে ফোন করতে। তো আমি আধঘণ্টা পরে ফোন করি। একই উত্তর। এরকম তিন-চার বার ফোন করার পর আমি ডাক্তারের সাথে কথা বলতে পারি। আবার আমি একটি ফার্নিচারের দোকানে কয়েকটা সোফা বানাতে দেই। দোকানদার বলে তিন সপ্তাহ পর নিয়ে যেতে। কিন্তু তিন সপ্তাহ পর যখন আমি ফোন করি তখন দোকানদার বলে এখনও তৈরি হয় নি। তো আমি কিছুদিন পর আবার ফোন করি কিন্তু একই উত্তর। মেজাজ প্রচণ্ড খারাপ হয়ে যায় যে, ইচ্ছে করছিল দোকানদারকে একটা থাপ্পড় মারি। 😡 কিন্তু কি আর করা…..

পরদিন আমি এক বন্ধুর বাসায় দাওয়াত খেতে যাই। গিয়ে দেখি তার ড্রইংরুমে সোফা সেট সাজানো। আমি অবাক হয়ে যাই। কারণ আমি যে দোকান থেকে সোফা বানাতে দিয়েছিলাম সেও একই দোকান থেকে দিয়েছিল। সে আমার দুইদিন পর বানাতে দেয় অথচ তারটা হয়ে গেছে আমারটা হয়নি। তাকে জিজ্ঞেস করলে সে বলে তার সোফা নাকি দুই সপ্তাহ পর দিয়ে দেয়। আমি তাকে জিজ্ঞাস করি এ কীভাবে সম্ভব। তখন আমার বন্ধুটি হেসে বলে, “রফিক, বর্তমানে মানুষরা সম্মান দেয় যদি দেখে তার সেক্রেটারি আসে। যার সেক্রেটারি আসে সবাই তাকে প্রভাবশালী লোক মনে করে।” আমি তখন তাকে বললাম, “তাহলে কি সোফার জন্য আমাকে সেক্রেটারি রাখতে হবে নাকি?” তখন সে বলে, “না, তার দরকার নেই। শুন একটা বুদ্ধি শিখিয়ে দেই। তুমি কাউকে ফোন করে কিছু চাওয়ার আগে বলবে যে, আমি মি. রফিক সাহেব-এর সেক্রেটারি বলছি। তাহলেই দেখবে সব কাজ কত তাড়াতাড়ি হয়ে  যায়।”

এর পর আমি বাসায় এসে সেই দোকানদারকে ফোন করে বললাম, “হ্যালো, আমি মি. রফিক সাহেবের সেক্রেটারি বলছি। আমি জানতে চাই স্যারের সোফাটি হতে আর কত দিন লাগবে।” তখন দোকানদার বলে মাত্র পাঁচ দিন লাগবে। এবং মজার কথা হচ্ছে পাঁচ দিন পরই সোফাটি চলে আসে। শুধু তাই নয়….

দাঁতের এক সমস্যার জন্য আমি ঐ ডাক্তারকে আবার ফোন দিই। এবং ফোন দিয়ে বলি যে, আমি মি. রফিক সাহেবের সেক্রেটারি বলছি। আমার স্যার ডাক্তার সাহেবের সাথে কথা বলতে চায়। এবং তখন সে অ্যাসিস্ট্যান্ট তাড়াতাড়ি ডাক্তারকে ফোন দিয়ে দেয়।

এভাবে সকল কাজের আগে আমি আমার সেক্রেটারি দিয়ে ফোন করাই এবং কাজটি তাড়াতাড়ি হয়ে যায়। যে কাজ আমি করতে পারি না, সেই কাজ আমার সেক্রেটারি করে দেয়। এজন্য বলছে, প্রভাবশালী হতে হলে সেক্রেটারি প্রয়োজন। তাহলে দেখবেন সব কাজ কত তাড়াতাড়ি হয়ে যাচ্ছে……..