বন্ধুরা,সবাই আমার সালাম নিও।আশা করি আপনারা সবাই ভালো আছেন।আজ আমি গনিত নিয়ে একটি ব্লগ লিখবো।

গণিত হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।অথচ,এই গনিত কেই আমরা সবচেয়ে ভয় পাই। 😀 গণিত-এর প্রয়োজনীয়তা সর্বাদিক থেকে।এই গনিতকে আবার মজার বস্তু হিসেবেও ব্যবহার করা যায়।আসুন এর একটা মজার ব্যবহার দেখি।


অংকের ফলাফলের সাথে বাংলা ভাষা মি্শ্রণ করলে বিভিন্ন মজার কান্ড সৃষ্টি হয়।এর একটি হচ্ছে ১১।যদি ১ কে ১১ দিয়ে ভাগ করা হয়।

অর্থ্যাৎ ১/১১=.০৯০৯০৯০৯০৯০৯…………………………..

এর উচ্চারণ হবে, এক ভাগ এগার =দশমিক শূন্য নয় শূন্য নয় শূন্য নয়……………..

এটা সত্য কথা। কারণ ১/১১ এর উওর শূন্য নয়। তাই এটা সত্যবাদি সংখ্যা।

 

আবার, ২ কে ১১ দিয়ে ভাগ করলে,

অর্থ্যাৎ ২/১১=.১৮১৮১৮১৮১৮১৮১৮……………………..

এটা দ্রুত উচ্চারণ করলে হবে, দুই ভাগ এগার=দশমিক এক আট এক আট এক আট এক আট টেকা টেকা টেকা টেকা…………………………………………

বিশ্বাস হয়! ২ এর মতো ছোট সংখ্যা টেকা টেকা অর্থ্যাৎ টাকা টাকা করছে। এটা অবশ্যই লোভী সংখ্যা। 😛

 

আরেকটি হচ্ছে ১১২৩ কে ৩৩৩৩ ভাগ করলে।

১১২৩/৩৩৩৩=.৩৩৬৯৩৩৬৯৩৩৬৯৩৩৬৯…………………………

এর উচ্চারণ হচ্ছে,এগারশো তেইশ ভাগ তিন হাজার তিনশো তেতএিশ = দশমিক তিন তিন ছয় নয় তিন তিন ছয় নয় তিন তিন ছয় নয়………………………………

দেখছেন ভাই।এত দিন ধরে জানতাম তিন আর তিন মানে ছয়।কিন্তু এখানে বলে তিন তিন ছয় নয়।কত বড় মিথ্যুক্!! এটা অবশ্যই মিথ্যাবাদী সংখ্যা। 😛

দেখছেন গনিত কী মজার। 😀